সোমবার, ০৩ অক্টোবর ২০২২, ০৮:৪৪ অপরাহ্ন

নোটিশ :
**জাতীয় জরুরি সেবা-৯৯৯ ॥ সরকারি তথ্য ও সেবা-৩৩৩ ॥ নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেবা-১০৯ ॥ দুদক-১০৬ ॥ **পুলিশ সুপার (চট্টগ্রাম জেলা)- ০১৩২০-১০৭৪০০ ॥ চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭- ০১৭৭৭-৭১০৭০০ ॥ রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা-০১৭৩৩-১৪১৮৪৩  ॥ রাউজান থানার ওসি-০১৩২০-১০৭৭০৪ ॥ সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল)-০১৩২০-১০৭৪৭১ ॥ রাউজান ফায়ার সার্ভিস-০১৮৮৬-৩৯৯২৭৫ ॥ রাঙ্গুনিয়া ফায়ার সার্ভিস-০১৮৬০-৫৬৫৬৭৫ ॥ হাটহাজারি ফায়ার সার্ভিস-০১৭৩০-০০২৪২৭ ॥ কালুরঘাট ফায়ার সার্ভিস-০১৭৩০-০০২৪৩৬ ॥ রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা-০১৭৫১-৮৯৮৮২২ ॥ চট্টগ্রাম পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২-০১৭৬৯-৪০০০১৯ ॥ **মাদক-যৌতুক-ইভটিজিং ও বাল্যবিবাহ’কে না বুলন **গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান **আপনার ছেলে-মেয়েকে স্কুল ও মাদ্রাসায় পাঠান **পাখি শিকার নিজে করবেন না অন্যকে করতে দিবেন না **মাদক মুক্ত সোনার বাংলা গড়ি **ইসলাম ধর্মের সবাই নামাজ পড়ি **হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান নিজ ধর্ম পালন করুন **খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকুন। **বিহঙ্গ টিভিতে যোগাযোগর ঠিকানা: ফোন: ০১৫৫৯-৬৩৩০৮০, ই-মেইল: newsbihongotv.com, (সবার জন্য বিহঙ্গ)
সংবাদ শিরোনাম:
ধর্মপাশায় ডোবার পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু সিরাজগঞ্জে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে সাফজয়ী আঁখি খাতুনকে সংবর্ধনা প্রদান বাউফলে গভীর রাতে বসত ঘড়ে আগুন লাগিয়ে হত্যার চেষ্টা, থানায় অভিযোগ! চোরাবালিতে আটকা পড়ে রাউজানের যুবকের মৃত্যু জেলা পরিষদের নির্বাচন অবাধ ও সুষ্ঠু হবে-নির্বাচন কমিশনার রাশেদা সুলতানা হাটহাজারীতে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা জন্মদিন পালিত দ্রব্যমুল্যের উর্দ্বগতিতে সিরাজগঞ্জে টুইষ্টিং শ্রমিকদের মজুরী বৃদ্ধির দাবিতে মানববন্ধন শাহজাদপুরে সাফ জয়ী ফুটবলার আঁখিকে সংবর্ধনা প্রদান সিরাজগঞ্জে বঙ্গবন্ধু ও বঙ্গমাতা গোল্ডকাপ প্রাথমিক বিদ্যালয় ফুটবল টুর্নামেন্ট ফাইনাল খেলা অনুষ্ঠিত ডা: রফিক চৌধুরী জুনিয়র হাই স্কুল পরিদর্শন করলেন জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা

২৫০ মণের হজরত গাউসুল আজম মাইজভাণ্ডারী শাহি ডেক: কাল রান্নার মধ্য দিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে

মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম, ফটিকছড়ি:: আগামীকাল শুক্রবার ২৫০ মণের ডেকে পায়েস রান্নার মধ্যে দিয়ে শুরু হতে যাচ্ছে রান্নার কার্যক্রম।

ডেক বসানো চুলার পরিপূর্ণ কাজ শেষ না হলেও পবিত্র ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে উক্ত ডেকে রান্নার কার্যক্রম শুর করতে যাচ্ছে কর্তৃপক্ষ।

ফটিকছড়ির নাজিরহাট-মাইজভাণ্ডার শরীফ সড়কের রোসাংগিরী ইউনিয়নের মাইজভাণ্ডার শরীফ এলাকার আজিমনগরসস্থ বিশাল চুলার ওপর বসানো হয়েছে ডেকটি।

দেশের অন্যতম মোস্তফা হাকিম শিল্পগ্রুপের হোছনে-আরা-মনজুর ওয়েলফেয়ার ট্রাস্ট ডেকটি বসিয়েছে। ডেকটি ছাড়াও উক্ত স্থানে রয়েছে মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফকে কেন্দ্র করে হযরত গাউছুল আজম সৈয়দ আহমদ উল্লাহ মাইজভাণ্ডারী(ক.) ও হযরত গোলামুর রহমান বাবা ভাণ্ডারী(ক.) নামে উক্ত ট্রাস্ট কর্তৃক নির্মিত আশেকানে মাইজভাণ্ডারী বিশ্রামাগার,সুবিশাল মসজিদ,দৃষ্টিনন্দন শাহী গেইট।

এছাড়া আরো ব্যপক পরিকল্পনা রয়েছে বলে জানান সংশ্লিষ্টগণ।

হজরত গাউসুল আজম মাইজভাণ্ডারী শাহি তবাররক ডেক’ নামের আড়াইশ’ মণের ডেকটি বসানোর পরিকল্পনা থেকে শুরু করে সবকিছু তদারকি করেছেন অত্র ট্রাষ্টের প্রতিষ্ঠাতা ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (চসিক) সাবেক মেয়র এম মনজুর আলম।

জানা যায়,বেশ কয়েকজন প্রকৌশলীর তত্ত্বাবধানে প্রায় ছয় মাস সময় লেগেছে ডেকটি তৈরি করতে। স্টেইনলেস স্টিল দিয়ে তৈরি ডেগটির ওজন প্রায় ৪০০০ কেজি। এর উচ্চতা ৯ ফুট এবং প্রস্থ ১১ ফুট। ১০ ফুট উঁচু চুলায় ডেগটি বসানো হয়েছে। ভারত থেকে আনা অত্যাধুনিক ফায়ার ব্রিক স্থাপন করা হয়েছে চুলায়। ডেগ ঘুরানোর জন্য চুলার ওপর অটোমেটিক ক্রেন বসানো হয়েছে।

বন্দরের কনটেইনার পরিবহনের কাজে ব্যবহার হয় এমন একটি লরি (প্রাইম মুভার) দিয়ে এটি ভাটিয়ারির একটি ইঞ্জিনিয়ারিং কারখানা থেকে ফটিকছড়িতে আনা হয়েছে।

এটি স্থাপনের জন্য চার গন্ডা জমি কিনে শেড নির্মাণও করা হয়েছে। সব মিলিয়ে কোটি টাকার কাছাকাছি খরচ হয়েছে। শুধু ডেগটি তৈরি করতে ২৫ লাখ টাকা খরচ হয়েছে। জ্বালানি হিসেবে ব্যবহার করা হবে লাকড়ি।

ডেকটিতে একসঙ্গে আড়াইশ’ মণ খাবার রান্না করা যাবে যা খেতে পারবেন ৬৪ হাজার লোকে। এটাতে খিচুড়ি, পায়েশ, শাহি জর্দা রান্না করা যাবে। বড় ডেকের পাশে চারটি অপেক্ষাকৃত ছোট ডেক থাকবে। বড় ডেকে রান্নার পর ছোট ডেকে তবাররক নামানো হবে। সেখান থেকে পরিবেশন করা হবে। মাংস,ভাত রান্না প্রক্রিয়া শুরু হবে আরো পরে। সেখানে দায়িত্বরত বার্বুচিকে ভারতের আজমীর শরীফস্থ ডেকের রান্না কিভাবে করে তা ট্রেনিং বা দেখে আনার মাধ্যমে এখানে শুরু করবে বলে জানা যায়।

বছরে প্রধানত পাঁচটি দিনে রান্না হবে এ শাহি ডেকে। সেগুলো হলো ১২ রবিউল আউয়াল, ১০ মহররম, ১০ মাঘ, ২৯ আশ্বিন ও ২২ চৈত্র। এ ছাড়া কেউ মানত করলে তাকে এ ডেকে রান্নার সুযোগ দেওয়া হবে। প্রধান দিবসগুলোতে রান্নার আগে আগ্রহীরা যাতে শরিক হতে পারেন সেই ব্যবস্থা থাকবে।

আগামী শুক্রবার (৮ জুলাই) প্রথমবারের মতো ২৫ মণ পায়েস রান্নার মাধ্যমে ডেগটির পরীক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু করা হবে। পরবর্তী বাকি কাজ সম্পন্ন করা হবে।

এদিকে ডেকটি দেখতে স্থানীয়দের পাশাপাশি প্রতিদিনই দেশের বিভিন্ন অঞ্চল থেকে লোকজন আসছেন। বিশেষ করে মাইজভাণ্ডার দরবার শরীফ জেয়ারত শেষে ডেকটি দেখতে আশেক ভক্ত ডেকটি দেখে যাচ্ছেন।

সেখানে দায়িত্বরত মোহাম্মদ মনির হোসাইন জানান,এ ডেকটি বসানো চুলার আরো কাজ বাকি রয়েছে।তবে ঈদুল আযহাকে সামনে রেখে পায়েস রান্নার মধ্যে দিয়ে পরিক্ষামূলক কার্যক্রম শুরু হবে। পরবর্তী বাকি কাজ সম্পন্ন করা হবে।

এই নিউজটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত,© এই সাইডের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি  
Design & Developed BY ThemeNeed.com