বৃহস্পতিবার, ০৬ অক্টোবর ২০২২, ০৪:৩৩ অপরাহ্ন

নোটিশ :
**জাতীয় জরুরি সেবা-৯৯৯ ॥ সরকারি তথ্য ও সেবা-৩৩৩ ॥ নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধ সেবা-১০৯ ॥ দুদক-১০৬ ॥ **পুলিশ সুপার (চট্টগ্রাম জেলা)- ০১৩২০-১০৭৪০০ ॥ চট্টগ্রাম র‌্যাব-৭- ০১৭৭৭-৭১০৭০০ ॥ রাউজান উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা-০১৭৩৩-১৪১৮৪৩  ॥ রাউজান থানার ওসি-০১৩২০-১০৭৭০৪ ॥ সহকারী পুলিশ সুপার (রাঙ্গুনিয়া সার্কেল)-০১৩২০-১০৭৪৭১ ॥ রাউজান ফায়ার সার্ভিস-০১৮৮৬-৩৯৯২৭৫ ॥ রাঙ্গুনিয়া ফায়ার সার্ভিস-০১৮৬০-৫৬৫৬৭৫ ॥ হাটহাজারি ফায়ার সার্ভিস-০১৭৩০-০০২৪২৭ ॥ কালুরঘাট ফায়ার সার্ভিস-০১৭৩০-০০২৪৩৬ ॥ রাউজান উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা-০১৭৫১-৮৯৮৮২২ ॥ চট্টগ্রাম পল্লীবিদ্যুৎ সমিতি-২-০১৭৬৯-৪০০০১৯ ॥ **মাদক-যৌতুক-ইভটিজিং ও বাল্যবিবাহ’কে না বুলন **গাছ লাগান, পরিবেশ বাঁচান **আপনার ছেলে-মেয়েকে স্কুল ও মাদ্রাসায় পাঠান **পাখি শিকার নিজে করবেন না অন্যকে করতে দিবেন না **মাদক মুক্ত সোনার বাংলা গড়ি **ইসলাম ধর্মের সবাই নামাজ পড়ি **হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান নিজ ধর্ম পালন করুন **খারাপ কাজ থেকে বিরত থাকুন। **বিহঙ্গ টিভিতে যোগাযোগর ঠিকানা: ফোন: ০১৫৫৯-৬৩৩০৮০, ই-মেইল: newsbihongotv.com, (সবার জন্য বিহঙ্গ)

ধর্মপাশায় বন্যার্ত ১১০০টি পরিবারের মাঝে ত্রাণ বিতরণ

ফারুক আহমেদ, ধর্মপাশা:: সুনামগঞ্জের ধর্মপাশা উপজেলায় বন্যার্ত এক হাজার ১০০টি পরিবারের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়েছে। গতকাল রোববার সকাল ৯টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়।

জানা গেছে, ঢাকা গাজিপুর সদরের গাজিপুর সদর, নয়নপুর পুকুরপাড় মসজিদ, রাজেন্দ্রপুর ক্যান্টনমেন্ট এর সম্মিলিত উলামায়ে কেরাম ও ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের উদ্যোগে বৃদ্ধ, প্রতিবন্ধী, গর্ভবতী, এতিম ও শিশুদের মাঝে নগদ ২ লাখ ৫০ হাজার টাকা বিতরণ সহ, ৩কেজি চিড়া, ১কেজি মুড়ি, ১কেজি খেজুর, ১কেজি ২৫০গ্রাম গুড়, ৩০০গ্রাম শিশুদুধ, ১কেজি সুজি, ৫০০গ্রাম চিনি, ২লিটারের একটি পানির বোতল, নাপা এক্সট্রা একপাতা, এমোডিস একপাতা, ৪টি খাবার স্যালাইন, এক প্যাকেট বিস্কুট, একটি মোমবাতি, একটি দিয়াশলাই মেস সহ এই উপজেলার ধর্মপাশা সদর, পাইকুরাটি ও জয়শ্রী ৩টি ইউনিয়নের রাজাপুর, বাখড়পুর, হিজলা, নখল খলা, মইসাখালি, লংকাপাথারিয়ার, দুর্বাকান্দা, মহিষেরবাতান, মুঘুয়ারচড়, কেশবপুর, মুরাদপুর ও কাইকুইরা সহ মোট ১২টি গ্রামের বন্যার্ত এক হাজার ১০০টি পরিবারের মাঝে এসব ত্রাণসামগ্রী বিতরণ করা হয়। তবে অনেকের অভিযোগ এত বড় বন্যা হয়েছে অতছ কোনো জনপ্রতিনিধি এখনো পর্যন্ত তাদের দেখতেও যায়নি।

সম্মিলিত উলামায়ে কেরামদের একজন বলেন, আমরা টেলিভিশনের খবরের মাধ্যমে বন্যা কবলিতদের কষ্টের দৃশ্য দেখতে ও জান্তে পারি। তাই আমরা সম্মেলিত উলামায়ে কেরাম ও ধর্মপ্রাণ মুসল্লীবৃন্দ বন্যার্তদের জন্য এইসব ত্রাণসামগ্রী নিয়ে আসি।

লংকাপাথারিয়া গ্রামের তৌহিদ মিয়া বলেন, এই বন্যার মাইজে আমরার জইন্যে আন্নেরা কষ্ট কইরা খাওন নিয়া আইছইন হের লাইগ্যা আমরা অনেক খুশী। আন্নেরা যেইবাই কান্দে কইরা ঘরে ঘরে খাওন দিয়া যাইতাছুন এমনে কেওই দেয়না। আন্নেরার লাইগ্যা দোয়া করি আল্লাই আন্নেরার ভাল করুক।

সম্মিলিত উলামায়ে কেরাম ও ধর্মপ্রাণ মুসল্লীদের সদস্যবৃন্দ ও সাংবাদিক ফারুক, মহিউদ্দিন আরিফ, স্থানীয় বাসিন্দা ইসমাইল, জিয়া উদ্দিন প্রমুখ।

 

এই নিউজটি আপনার সামাজিক মিডিয়াতে শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published.

সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত,© এই সাইডের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার সম্পুর্ণ বেআইনি  
Design & Developed BY ThemeNeed.com