২৫শে নভেম্বর, ২০২২ খ্রিস্টাব্দ
১০ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ

Table of Contents

শার্শায় পশুহাটে স্বাস্থ্য বিধি মানা হচ্ছে না

বেনাপোল প্রতিনিধি:: যশোরের শার্শায় স্বাস্থ্য বিধির প্রতি কোন তোয়াক্কা না করে সাত মাইল পশুহাটে হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিতে আবারো বেড়েছে করোনা সংক্রমনের ঝুকি।

সরকার প্রান্তিক খামারীদের কথা বিবেচনায় কোরবানী পশু বিক্রীর সুযোগ দিতে স্বাস্থ্য বিধি মেনে হাট চালানোর অনুমতি দেয়। কিন্তু সে নির্দেশের প্রতি বুড়ি আঙ্গুলী দেখিয়ে সংক্রমণ ঝুকি নিয়ে হাট চালাচ্ছেন ইজারাদার।

রোববার সকালে সাতমাইল পশু হাটে গিয়ে দেখা যায়, গরু কেনা-বেঁচা করতে দেশের বিভিন্ন এলাকা থেকে এ হাটে কয়েক হাজার মানুষের সমগম হয়েছে। তবে সেখানে সামাজিক দূরত্ব বা মাস্ক পরিধানের বিষয়ে কোন সচেতনতা নেই কারো মধ্যে। এছাড়া সরকারী নির্দেশ উপেক্ষা করে রাস্তার উপর চলে এসেছে পশু হাটটি। এতে যানবাহন ও সাধারণ মানুষের চলাচলে দূর্ভোগ বেড়েছে। হাট তদারকিতে ইজারাদারদের পক্ষে স্বেচ্ছা সেবক নামে শতাধিক কর্মী থাকলে শৃঙ্খলা রোধ বা স্বাস্থ্য বিধি নিশ্চিত করতে করো মাথা ব্যাথা নেই।

পথচারী দেলোয়ার হোসেন জানান, পশুহাটের যে ভয়াবহ অবস্থ্যা তাতে মনে হচ্ছে নতুন করে আবারো এ হাট থেকে আশপাশের অঞ্চল গুলোতে করোনা সংক্রমন ছড়াবে। খামারীদের কথা বিবেচনা করে এ মুহূর্তে গরু হাট চালু রাখা জরুরী। তবে স্বাস্থ্য বিধি না মানলে ইজারাদারদের শাস্তিমুলক ব্যবস্থা নেওয়া দরকার।

সাত মাইল গরুহাটের এজারাদার খতিব ধাবক জানান, কোরবানীর জন্য হাটে গরু বেশি ওঠায় লোকসমাগম বেশি। তবে চেঁনা-কেনা কম। গরু হাটে এর চেয়ে বেশি স্বাস্থ্য বিধি মানা যায়না। তার পরেও তারা সর্বচ্চ চেষ্টা করছেন নিয়ম মানতে।

শার্শা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা(ইউএনও) মীর আফিফ রেজা জানান, স্বাস্থ্য বিধি মানতে কঠোর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে ইজারাদারদের। রাস্তার উপর যাতে গরুহাট না বসে তার জন্য প্রয়োজনে কম গরু হাটে তুলতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তার পরেও যদি নির্দেশনা না মানে তাহলে যেকোন সময় হাট বন্ধ করে দেওয়া হবে।

শার্শা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের পরিসংখ্যন জেসমিন আক্তার জানান, সীমান্ত এলাকা হওয়াতে এঅঞ্চলে করোনা সংক্রমণ একটু বেশি। সবাইকে স্বাস্থ্য বিধি মানতে পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। উপজেলাতে এ মুহূর্তে প্রায় দুই শো করোনা আক্রান্ত রোগী রয়েছে। এর মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের করোনা ইউনিটে চিকিৎসাধীন রয়েছেন ৩ জন। বাকি করোনা আক্রান্তরা নিজ বাড়িতে থেকে চিকিৎসা নিচ্ছেন।।

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Related Posts